ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

ডিটেকটিভ ডেস্ক

করোনা অতিমারির সময় ছেলে তার মায়ের লাশটাও দেখতে যায়নি। কিন্তু পুলিশ মাঠে থেকে কাজ করেছে। লাশের গোসলের পর দাফন করেছে। শুধু তাই নয়, পুলিশ আজ সারাবিশ্বে আলোচিত হচ্ছে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার পুলিশ সুসজ্জিত। এতবড় একটি শহরে এত এত লোক বাস করে। সেখানে ডিএমপির মেধাবী অফিসারদের দক্ষতায় আজ ঢাকা শহরে শান্তির সুবাতাস বইছে। অর্থাৎ ‘সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্টের জন্য সাসটেইনেবল পিস’ (টেকসই শান্তি) দরকার। এ জন্য দরকার ‘সাসটেইনেবল সিকিউরিটি’। আর সেই লক্ষ্যেই কাজ করছে পুলিশ। তিনি আরো বলেন, এখন যে জনবল নিয়ে ডিএমপি চলছে প্রয়োজনে এর সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। রাতদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে নগরবাসীকে নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। জঙ্গি ও সন্ত্রাস দমনসহ সব কিছুতে পুলিশ যে সফলতা পেয়েছে তা মাইলস্টোন হিসেবে কাজ করবে।

বঙ্গবন্ধু যে জনতার পুলিশ হওয়ার ডাক দিয়েছিলেন আমার মনে হয় আমরা সেই জায়গায় এসেছি জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পুলিশকে জনতার পুলিশ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। আজকে যদি ঘুরে তাকাই তাহলে মনে হয় আমরা সেই জায়গায় পৌঁছেছি। আজকে জনবান্ধব পুলিশ তৈরি হয়েছে।

ডিএমপির প্রশংসা করে আসাদুজ্জামান খান বলেন, তারা আজকে কাজ করছে বলে আমরা নিরাপত্তায় সিটিতে বাস করছি। দুই কোটি মানুষের বসবাস এ সিটিতে। সেখানে আমাদের পুলিশ মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে। তাই আমাদের পুলিশের যখন যা প্রয়োজন সবকিছুই আমরা করে যাচ্ছি। ইউনিট বাড়ানো, প্রশিক্ষণ সবকিছু সামর্থ্য অনুযায়ী কাজ করছি। আগামীতে পুলিশ আরো সুন্দরভাবে কাজ করবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী আমাদের পুলিশের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন কিছুদিন আগে। তিনি বলেন, জঙ্গি দমন সন্ত্রাস দমনে আপনারা যে ভূমিকা রেখেছেন, যে সফলতা লাভ করেছেন তা একটা মাইলস্টোন।

আসাদুজ্জামান খান আরো বলেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ অনেক দায়িত্ব পালন করে। ভিভিআইপি, বিভিন্ন অনুষ্ঠান, ধর্মীয়, রাজনৈতিক অনুষ্ঠান সব ক্ষেত্রেই মেট্রোপলিটন পুলিশ সুশৃঙ্খলভাবে দায়িত্ব পালন করছে।

এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ৪৭তম প্রতিষ্ঠার বার্ষিকীর শুভ উদ্বোধন করেন। এরপর প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আখতার হোসেন ও পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ, অতিরিক্ত আইজিপি ও স্পেশাল ব্রাঞ্চের প্রধান মনিরুল ইসলাম, পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মো. আসাদুজ্জামানসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *