ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

ডিটেকটিভ ডেস্ক

বাংলাদেশের দিবসসমূহ

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস : ১০ জানুয়ারি। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালীন দীর্ঘ ১০ মাস কারাভোগের পর ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে স্বদেশে (বাংলাদেশের ভুখন্ডে) ফিরে আসেন, তারই উপলক্ষে এই দিবসটি পালিত হয়।

জাতীয় শিক্ষক দিবস : ১৯ জানুয়ারি। ২০০৩ সালে ১৯ জানুয়ারি বাংলাদেশের শিক্ষক সমাজকে যথাযোগ্য মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করার অঙ্গীকার নিয়ে তৎকালীন সরকার এ দিবসটি চালু করে। এছাড়া আন্তর্জাতিকভাবে ৫ই অক্টোবর বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালন করা হয়ে থাকে।

শহীদ আসাদ দিবস : ২০ জানুয়ারি। ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে আমানুল্লাহ আসাদুজ্জামান নামের একজন ছাত্রনেতা তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) শাসক আইয়ুবশাহীর পতনের দাবীতে মিছিল করার সময় পুলিশের গুলিতে নিহত হন। তিনি ১৯৬৯ সালের বাঙালির গণ-আন্দোলনে তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তানের তিন শহীদদের একজন, অন্য দু’জন হচ্ছেন- শহীদ রুস্তম ও শহীদ মতিউর।

গণঅভ্যুত্থান দিবস : ২৪ জানুয়ারি। ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে তৎকালীন পাকিস্তানি শাসকদের বিরুদ্ধে পূর্ব পাকিস্তানের ছাত্র-জনতা প্রতিরোধ গড়ে তোলে, মিছিল বের করে। মিছিলে পুলিশের গুলিবর্ষণে নিহত হন নবম শ্রেণীর ছাত্র মতিউর রহমান। সেই গণঅভ্যুত্থানের স্মরণে এই দিনটি পালিত হয়।

কম্পিউটারে বাংলা প্রচলন দিবস : ২৫ জানুয়ারি। প্রবাসী প্রকৌশলী সাইফুদ্দাহার শহীদ ১৯৮৫ খ্রিস্টাব্দে অ্যাপলের ম্যাকিন্টোশ কম্পিউটারে এদিন প্রথম বাংলা লিখন চালু করেন।

সলঙ্গা দিবস : ২৭ জানুয়ারি। ১৯২২ সালের ২৭ জানুয়ারি তরুণ নেতা মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ এর নেতৃত্বে তৎকালীন পাবনা জেলার সিরাজগঞ্জ মহকুমার সলঙ্গা হাটে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটে। ঐ দিন প্রায় ১২০০ প্রতিবাদী মানুষ ব্রিটিশ পুলিশ বাহিনীর গুলিতে প্রাণ হারায়।

বৈশ্বিক দিবসসমূহ

বিশ্ব জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ দিবস : ২ জানুয়ারি। ১৯৮৯ সাল থেকে জাতিসংঘের উদ্যোগে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালিত হচ্ছে। ২ জানুয়ারি ‘বিশ্ব জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ দিবস।’ কোনো কোনো দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধি রীতিমতো ভয়াবহ আকার নিচ্ছে, আবার

কোথাও জনসংখ্যা বৃদ্ধি নয়, বরং হ্রাস পাওয়াটাই সমস্যা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। এমনি প্রেক্ষাপটে আজ পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ দিবস’।

বিশ্ব ব্রেইল দিবস : ৪ জানুয়ারি। দৃষ্টিহীন ও বা স্বল্পদৃষ্টিজনিত চ্যালেঞ্জের শিকারদের জন্য লেখা পড়া ও যোগাযোগের বিশেষ পদ্ধতির নাম ব্রেইল। এর আবিষ্কারক লুইস ব্রেইলের আজ জন্মদিন। ব্রেইলের গুরুত্ব তুলে ধরার জন্য এর আবিষ্কারকের জন্মদিনটি বিশ্বজুড়ে ব্রেইল দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

বিশ্ব হিন্দি দিবস : ১০ জানুয়ারি। ১৯৭৫ সালের ১০ জানুয়ারি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর তত্ত্বাবধাধানে প্রথমবার হিন্দি ভাষায় কনফারেন্স আয়োজিত করা হয়। এই সম্মেলনে ৩০টি দেশের ১২২ জন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিল। ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ২০০৬ সালের ১০ জানুয়ারি ওই দিনটিকে প্রতিবছর বিশ্ব হিন্দি দিবস হিসেবে পালন করার কথা ঘোষণা করেছিলেন। তার থেকে প্রতিবছর এই দিনটি বিশ্ব হিন্দি দিবস হিসেবে উৎযাপিত হয়ে আসছে ও প্রায় প্রতি বছরই বিভিন্ন দেশে যেমন ভারতবর্ষ, যুক্তরাজ্য, ত্রিনিদাদে হিন্দি ভাষায় কনফারেন্সের আয়োজন করা হয়।

বিশ্ব তথ্য সুরক্ষা দিবস : ২৮ জানুয়ারি। আজ বিশ্ব ‘ডাটা প্রাইভেসি ডে’ বা তথ্য সুরক্ষা দিবস। ১৯৮১ সালে ইউরোপের সংগঠন ‘কাউন্সিল অব ইউরোপ’ কনভেনশন ১০৮ স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে বিশ্বে প্রথম এ দিবস পালন শুরু হয়। প্রতি বছর দিবসটি বিশ্বব্যাপী পালন করা হচ্ছে। এর মূল লক্ষ্য ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সচেতনতা তৈরি এবং অনলাইনে ব্যক্তিগত গোপনীয়তার বিষয়টি সুরক্ষার অধিকার নিশ্চিত করা।

আন্তর্জাতিক কাস্টম্স দিবস : ২৬ জানুয়ারি। ওয়ার্ল্ড কাস্টম্স অর্গানাইজেশনের (WCO) অন্যতম সদস্য হিসেবে বাংলাদেশে দিবসটি পালিত হয়।

বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস : শেষ রবিবার। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা কুষ্ঠ রোগে আক্রান্ত রোগীদের প্রতি করণীয় ও রোগ নিরূপণে সচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রতি বছরের জানুয়ারি মাসের শেষ রবিবার বিশ্বের ১০০টিরও অধিক দেশে বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস পালন করা হয়।

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *