ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

ডিটেকটিভ ডেস্ক

বাংলাদেশের দিবসসমূহ

জাতীয় বিমা দিবস : ১ মার্চ জাতীয় বীমা দিবস। বীমা শিল্পের উন্নয়ন ও বীমা সম্পর্কে জনসচেতনতা বাড়ানোর লক্ষ্যে ২০২০ সালের ১৫ জানুয়ারি বাংলাদেশ সরকার এটি প্রবর্তন করে। বাংলাদেশে এটি জাতীয়ভাবে পালিত হয়।

জাতীয় পতাকা দিবস : ২ মার্চ বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা দিবস। একাত্তরের এই দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনে প্রথম জাতীয় পতাকা তোলা হয়েছিল। সবুজ জমিনের ওপর লাল বৃত্তের মাঝখানে সোনালি মানচিত্র খচিত এই পতাকা। এই দিনটি জাতীয় পতাকা দিবস হিসেবে পালিত হয়ে থাকে।

টাকা দিবস : ৪ মার্চ যুদ্ধ-বিধ্বস্ত সদ্য স্বাধীন দেশে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে ১৯৭২ সালের ৪ মার্চ কাগজি টাকার প্রচলন শুরু হয়।

জাতীয় পাট দিবস : ৬ মার্চ জাতীয় পাট দিবস। পাট বিষয়ে গবেষণা, উৎপাদন, বহুমুখী পাট পণ্যের উৎপাদন, ব্যবহার এবং রফতানি বাড়াতে দিবসটি পালিত হয়ে থাকে।

ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চ জাতীয় দিবস : ১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দের ৭ই মার্চ ঢাকার রমনায় অবস্থিত রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যান) অনুষ্ঠিত জনসভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতির উদ্দেশ্যে এক ঐতিহাসিক ভাষণ প্রদান করেন। … নিউজউইক ম্যাগাজিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাজনীতির কবি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। উল্লেখ্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণকে ইতোমধ্যে ইউনেস্কো এমওডাব্লিউ তালিকাভুক্ত করেছে।

জাতীয় নারী দিবস : ৮ মার্চ নারী দিবস। শ্রমিক কর্মী থেরেসা মালকিয়েল কর্তৃক চিন্তাপ্রসূত একটি স্মৃতিরক্ষা দিন। এটি প্রধানত আমেরিকার সোশ্যালিস্ট পার্টি কর্তৃক নিউ ইয়র্ক সিটিতে ১৯০৯ এবং ১৯১০ সালে আয়োজিত হয়েছিল। এটি ছিল আন্তর্জাতিক নারী দিবসের পূর্ববর্তী প্রথমদিককার দিবস উদযাপন যা বিশ^ব্যাপী ১৯১১ সালে পরিচিতি লাভ শুরু করে। যদিও এটি এখন বেশ কয়েক বছর ধরে মার্চের পরিবর্তে ফেব্রুয়ারিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পালন করা হয়।

শিশু দিবস : ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম তারিখে ২০১১ খ্রিস্টাব্দ থেকে শিশুদের সার্বিক কল্যাণে শিশু দিবস পালিত হয়ে থাকে।

পতাকা উত্তোলন দিবস : ২৩ মার্চ ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে পল্টন ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উপস্থিতিতে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করে। এই দিবসটি বাংলাদেশের স্বাধীনতার চেতনাস্বরূপ পালিত হয়।

স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস : ২৬ মার্চ ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে পাকিস্তানি শাসকদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে বাঙালিদের প্রতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আহ্বান জানান, ২৬ মার্চ গভীর রাতে স্বাধীনতার ঘোষণা প্রদান করেন। ঐ দিন বেশ কয়েকবার সম্প্রচার মাধ্যমগুলোতে এই ঘোষণা প্রচারিত হয় এবং বাংলাদেশের (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) আনুষ্ঠানিকভাবে যুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধ শুরু। এই যুদ্ধ ঐ বছরই ১৬ ডিসেম্বর সমাপ্ত হয় এবং পূর্ব পাকিস্তান স্বাধীনতা লাভ করে ও বাংলাদেশ নামক নতুন একটি দেশ আত্মপ্রকাশ করে। এর পর থেকে প্রতি বছর মার্চ মাসের এই দিনটিকে ‘স্বাধীনতা ঘোষণার দিবস’ বা ‘স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস’  হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

জাতীয় দুর্যোগ প্রস্তুতি দিবস : ৩১ মার্চ ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দ থেকে প্রতিবছর বাংলাদেশে, দুর্যোগ মোকাবিলা করার প্রস্তুতিস্বরূপ এই দিবসটি পালিত হয়ে আসছে।

বৈশ্বিক দিবসসমূহ

কমনওয়েলথ দিবস : মার্চ মাসের ২য় সোমবার কমনওয়েলথভূক্ত দেশসমূহে যথাযোগ্য মর্যাদায় কমনওয়েলথ দিবস পালন করা হয়। সাধারণতঃ অধিভূক্ত দেশের রাষ্ট্রপ্রধান, কমনওয়েলথ মহাসচিব এবং হাইকমিশনারগণের উপস্থিতিতে মহামান্য রাণী ২য় এলিজাবেথ ওয়েস্টমিনিস্টার অ্যাবে, লন্ডনে বহুমূখী বিশ্বাসযোগ্য সেবার বার্তা নিয়ে জনসমক্ষে উপস্থিত হন। সেখানে রাণী কমনওয়েলথবাসীদের কাছে তাঁর বক্তব্য পেশ করেন যা বিশ্বব্যাপী সরাসরি সম্প্রচারিত হয়।

বিশ্ব বই দিবস : ৩ মার্চ বিশ্ব বই দিবস বা বিশ্ব গ্রন্থ দিবস (এছাড়া বিশ্ব বই এবং কপিরাইট দিবস, বা বইয়ের আন্তর্জাতিক দিবস নামেও পরিচিত) হল পড়া, প্রকাশনা এবং কপিরাইট প্রচারের জন্য জাতিসংঘের শিক্ষা, বৈজ্ঞানিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন (ইউনেস্কো) দ্বারা আয়োজিত একটি বার্ষিক দিবস। ২৩ এপ্রিল ১৯৯৫ সালে ইউনেস্কো প্রথমবারের মত বিশ্ব বই দিবস উপযাপন করে এরপর থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রতিবছর ২৩ এপ্রিল বিশ্ব বই দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

বিশ্ব নারী দিবস : ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস (পূর্বনাম আন্তর্জাতিক কর্মজীবী নারী দিবস) প্রতি বছর মার্চ মাসের ৮ তারিখে পালিত হয়। সারা বিশ্বব্যাপী নারীরা একটি প্রধান উপলক্ষ হিসেবে এই দিবস উদ্যাপন করে থাকেন। বিশ্বের এক এক প্রান্তে নারীদিবস উদ্যাপনের প্রধান লক্ষ্য এক এক প্রকার হয়। কোথাও নারীর প্রতি সাধারণ সম্মান ও শ্রদ্ধা উদ্যাপনের মুখ্য বিষয় হয়, আবার কোথাও মহিলাদের আর্থিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠাটি বেশি গুরুত্ব পায়।

বিশ্ব কিডনি দিবস : ১০ মার্চ বিশ্ব কিডনি দিবস। বিশ্বের জনগোষ্ঠীর প্রতি ১০ জনে একজন কিডনি রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। কিডনি রোগের এ প্রকট অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে জনগণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে বিশ্ব কিডনি দিবস পালিত হয়ে থাকে। শুধু জনগণের সচেতনতা নয়, সেই সঙ্গে ডাক্তার, সেবিকা ও জনস্বাস্থ্য সেবার সঙ্গে জড়িত স্বাস্থ্যকর্মী এবং বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠান ও সরকারের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কিডনি রোগের বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করা এ দিবসের লক্ষ্য।

আন্তর্জাতিক নদীকৃত্য দিবস (International Day of Actions for Rivers) : ১৪ মার্চ ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে ব্রাজিলের কুরিতিবা শহরে এক সমাবেশের আয়োজন করে নদীর প্রতি দায়বদ্ধতার কথা স্মরণ করিয়ে দেয়া হয়। তাইওয়ান, ব্রাজিল, চিলি, লেসোথো, আর্জেন্টিনা, থাইল্যান্ড, রাশিয়া, ফ্রান্স, সুইজারল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্র থেকে অংশগ্রহণ করা লোকজনই সর্বপ্রথম এই দিনে নদীকৃত্য দিবস পালনের ঘোষণা দেন।

বিশ্ব পাই দিবস : ১৪ মার্চ পাই দিবস বা আপাত পাই দিবস গাণিতিক ধ্রুবক পাই-এর সম্মানে উদযাপনের দিন। পাই-এর মান প্রায় ৩.১৪ বলে প্রতি বছর মার্চ ১৪ (৩/১৪) পাই দিবস হিসাবে পালিত হয়। ১৯৮৮ খ্রিস্টাব্দে ল্যারি শ’ যুক্তরাষ্ট্রের সানফ্রান্সিসকো এক্সপ্রোরেটরিয়ামে সর্বপ্রথম পাই দিবস উদযাপন করেন। তাছাড়া এই দিনে বিজ্ঞানী আইনস্টাইনেরও জন্মদিন। তবে আপাত পাই দিবস নানা দিনে পালিত হয়ে থাকে।

পঙ্গু দিবস : ১৫ মার্চ বিশ্ব পঙ্গু দিবস। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দিবসটি পালিত হচ্ছে। বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হয়ে থাকে। বাংলাদেশে প্রতিদিনই সড়ক দূর্ঘটনায় বহু মানুষের জীবনে পঙ্গুত্বের অভিশাপ নেমে আসে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এসব সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির চেয়ে পঙ্গুত্বের সংখ্যা দ্বিগুণের বেশি। দেশে পঙ্গুত্ব নিয়ে সঠিক কোনো পরিসংখ্যান না থাকলেও বিশেষজ্ঞদের ধারণা অনুযায়ী, দেশে প্রতি বছর দুর্ঘটনায় আহত হয়ে অন্তত ১০ থেকে ১২ হাজার মানুষ পঙ্গুত্ব বরণ করেন।

বিশ্ব ক্রেতা অধিকার দিবস : ১৫ মার্চ : ভোক্তা বা ক্রেতাদের অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও পালিত হয় বিশ্ব ক্রেতা অধিকার দিবস।

বিশ্ব শিশুনাট্য দিবস : ২০ মার্চ বিশ্ব শিশু-কিশোর ও যুব নাট্য দিবস। শিশু-কিশোর ও যুব নাট্যকর্মীদের নাচ, ছাতানৃত্য, দলীয় নৃত্য, গান, নাটক ও ক্লাউন শোসহ নানা আয়োজনে উদযাপিত হয় দিনটি।

বিশ্ব বন দিবস : ২১ মার্চ ২১ ‘আন্তর্জাতিক বন দিবস’। ‘বন ও জীববৈচিত্র্য মূল্যবান অতি, হারালে অপূরণীয় ক্ষতি’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এবার দিবসটি পলিত হচ্ছে। ১৯৯২ সালে ‘রিও ঘোষণা’য় বন সৃজন ও রক্ষার্থে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণে জাতিসংঘ সিদ্ধান্ত নেয়। এরপর ২০১২ সালে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সভায় বন ও বনভূমির নিরাপত্তা রক্ষার্থে ২১ মার্চকে বিশ্ব বন দিবস ঘোষণা করা হয়। সেই থেকে ২১ মার্চকে বিশ্ব বন দিবস হিসেবে পালন করা হচ্ছে। চলতি বছরও জাতিসংঘ বন দিবসের কার্মসূচি ঘোষণা করেছে। জাতিসংঘের ওয়েব সাইটে এ সংক্রান্ত তথ্য এবং ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে।

বিশ্ব বর্ণবৈষম্য দিবস : ২১ মার্চ আন্তর্জাতিক জাতিগত বর্ণবৈষম্য বিলোপ দিবস আজ। প্রতিবছর ২১ মার্চ সারাবিশ্বে এ দিবসটি পালিত হয়।

বিশ্ব পানি দিবস : ২২ মার্চ বিশ্ব জল দিবস বা বিশ্ব পানি দিবস হল জল বা পানির গুরুত্বকে তুলে ধরার জন্য জাতিসংঘ কর্তৃক বার্ষিকভাবে উদযাপিত একটি দিন (সর্বদা ২২ মার্চ)। ১৯৯৩ সালে জাতিসংঘ সাধারণ সভা ২২ মার্চ তারিখটিকে বিশ্ব জল দিবস বা বিশ্ব পানি দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।

বিশ্ব আবহাওয়া দিবস : ২৩ মার্চ বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা (ইংরেজি: World Meteorological Organization) : এটি ১৯১ সদস্য রাষ্ট্র ও রাজ্যেগুলোর আন্তঃসরকারি প্রতিষ্ঠানের একটি সদস্যপদ । ১৮৭৩ সালে,আন্তর্জাতিক আবহাওয়া সংস্থা থেকে এর উৎপত্তি হয়। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা ১৯৫০ সালের ২৩ মার্চ প্রতিষ্ঠিত হয়।

বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস : ২৪ মার্চ আজ ২৪ মার্চ বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস। যক্ষ্মা রোগের ক্ষতিকর দিক বিশেষ করে স্বাস্থ্য, সামাজিক ও অর্থনৈতিক পরিণতি সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং এই মহামারীর নির্মূলে দিবসটি পালিত হয়। ১৮৮২ সালের এই দিনে ড. রবার্ট কোচ যক্ষ্মার জীবাণু আবিষ্কার এবং এর রোগ নির্ণয় ও নিরাময়ের পথ উন্মোচন করেন। তাকে স্মরণ করেই এই দিনটিতে যক্ষ্মা দিবস পালিত হয়ে আসছে।

বিশ্ব নাট্য দিবস : ২৭ মার্চ বিশ্ব থিয়েটার দিবস (ইংরেজি: World Theatre Day) প্রতিবছর ২৭ মার্চ পালিত হয়। আন্তর্জাতিক থিয়েটার ইন্সটিটিউটের দ্বারা ১৯৬১ সালে সর্বপ্রথম এই দিবসটির প্রচলন শুরু হয়েছিল।

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *