ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

ডা. মেহেদী হাসান

আমাদের শরীরের প্রত্যেকটি অঙ্গ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ একটি অসুস্থ থাকলে আপনার মন ও শরীর অসুস্থ থাকে। অনেকেই কিডনির সমস্যায় ভুগছেন। তবে বুঝতে পারছেন না। কিডনির সমস্যা প্রথম দিকে বোঝা যায় না। তবে যখন সমস্যা প্রকোট হয় তখন নানাবিধ শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়।

অনেকের কিডনি নষ্ট হয়ে গেলে নতুন করে কিডনি প্রতিস্থাপন করে থাকে। কিডনি প্রতিস্থাপন ও চিকিৎসা সবই কষ্টদায়ক। তাই যে কোনো রোগ থেকে বাঁচার সহজ উপায় হচ্ছে রোগ সম্পর্কে জানা ও সচেতন থাকা। রোগাক্রান্ত হওয়ার চেয়ে রোগ প্রতিরোধ উত্তম।

আসুন জেনে নিই কিডনি রোগ কেন হয়।

কিডনি রোগের কারণ :

ডায়েবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, ইউরিন ইনফেকশন, কিডনিতে পাথরসহ আরও অনেক কারণে কিডনি রোগ হয়। নিয়মিত পরিশ্রম ও ব্যায়াম না করা, পানি না খাওয়া, ধূমপান করা, এমনকি অনেক সময় কিডনি রোগের পরিবারিক ইতিহাস থাকলেও এই রোগ হতে পারে।

কিডনি রোগটি দীর্ঘস্থায়ী হলে তাকে বলে ক্রনিক কিডনি ডিজিজ (সিকেডি) অর্থাৎ ‘দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ’। সিকেডি শব্দটির অর্থ কিডনির দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতি, যা সময়ের সঙ্গে খারাপ হতে পারে। ক্ষতিটি খুব খারাপ হলে আপনার কিডনি কাজ করা বন্ধ করে দিতে পারে। একে কিডনি ব্যর্থতা বা শেষ পর্যায়ে রেনাল ডিজিজ (ইএসআরডি) বলা হয়। আপনার কিডনি ব্যর্থ হলে বাঁচতে আপনার ডায়ালাইসিস বা কিডনি প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হবে। ৩৭ মিলিয়ন মানুষ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ (সিকেডি) নিয়ে বাস করছে।

এখন আসুন জেনে রাখি ক্রনিক কিডনি রোগের (সিকেডি) কারণ কী?

যে কেউ সিকেডিতে আক্রান্ত হতে পারে। মূলত যাদের ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ (উচ্চ রক্তচাপ), হৃদরোগ, ডিসলিপিডেমিয়া, কিডনি রোগী পরিবারের সদস্য থাকলে। কিডনি সংক্রমণ, পলিসিস্টিক কিডনি রোগ, প্রস্রাবের প্রবাহে বাধা- উদাহরণস্বরূপ, কিডনিতে পাথর, বর্ধিত প্রস্টেট, দীর্ঘমেয়াদি নির্দিষ্ট ওষুধের নিয়মিত ব্যবহার – যেমন লিথিয়াম এবং ননস্টেরয়েড অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ড্রাগস (এনএসএআইডি)

কিডনি ব্যর্থতার লক্ষণগুলো কী কী?

আপনার কিডনি ব্যর্থ হতে শুরু করলে আপনি নিম্নলিখিত এক বা একাধিক লক্ষণ লক্ষ্য করতে পারেন-

১। চুলকানি

২। পেশিতে ব্যথা

৩। বমি বমি ভাব এবং বমি

৪। ক্ষুধা লাগছে না/ মুখের অরুচি

৫। পা এবং গোড়ালি ফোলা

৬। অত্যধিক প্রস্রাব (প্রস্রাব) বা পর্যাপ্ত প্রস্রাব নয়।

৭। আপনার দম ধরতে সমস্যা

৮। ঘুমোতে সমস্যা

  • যদি আপনার কিডনি হঠাৎ কাজ করা বন্ধ করে দেয় (তীব্র কিডনি ব্যর্থতা), আপনি নিম্নলিখিত এক বা একাধিক লক্ষণ লক্ষ্য করতে পারেন-

১। পেটে ব্যথা, কোমরে ব্যথা

২। ডায়রিয়া

৩। জ্বর

৪। নাকের রক্তপাত হয়

৫। শরীরে ফুসকুঁড়ি ওঠা

৬। বমি বমি ভাব হওয়া বা বমি করা।

উপরের লক্ষণগুলোর একটি বা একাধিক হওয়া কিডনির গুরুত্বর সমস্যার লক্ষণ হতে পারে। যদি আপনি এই লক্ষণগুলোর কোনও লক্ষ্য করেন, তবে আপনার এখনই ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।

সিকেডির জটিলতাগুলো

আপনার কিডনি আপনার পুরো শরীরকে সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে। আপনার যখন সিকেডি রয়েছে, আপনার শরীরের বাকি অংশ কীভাবে কাজ করছে তা নিয়েও আপনার সমস্যা হতে পারে। সিকেডির কয়েকটি সাধারণ জটিলতার মধ্যে রয়েছে রক্তাল্পতা, হাড়ের রোগ, হৃদরোগ, উচ্চ পটাসিয়াম, উচ্চ ক্যালসিয়াম এবং তরল তৈরি।

সিকেডির পর্যায়

ক্রনিক কিডনি ডিজিজ (সিকেডি) কিডনি ক্ষয়ের সমস্ত ৫ টি পর্যায়কে বোঝায়।

১। এর খুব হালকা ক্ষতি থেকে শুরু করে, পেটে ব্যথা, কোমরে ব্যথা, ডায়রিয়া, জ্বর, নাকের রক্তপাত হয়, শরীরে ফুসকুঁড়ি ওঠা, বমি বমি করা এই পাঁচটি পর্যাযে কিডনি ব্যর্থতা সম্পূর্ণ হয়। কিডনি রোগের পর্যায়েগুলি কিডনি তাদের কাজটি কতটা ভালো করতে পারে তার উপর ভিত্তি করে – রক্ত থেকে বর্জ্য এবং অতিরিক্ত তরল ফিল্টার করে।

  • আমরা কীভাবে সিকেডি প্রতিরোধ করতে পারি?

ডায়াবেটিস এবং উচ্চ রক্তচাপ সিকেডির সর্বাধিক ক্ষতির কারণ। আপনার যদি ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপ থাকে তবে আপনার রক্তে শর্করার এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে চিকিৎসকের সঙ্গে কাজ করা কিডনির রোগ প্রতিরোধের সেরা উপায়। স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে, উচ্চ রক্তচাপ এবং কিডনি রোগ, বা তাদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে। কিডনি রোগ এবং এটির কারণে সৃষ্ট সমস্যার ঝুঁকি কমাতে এই টিপসগুলো অনুসরণ করুন :

  • কম লবণযুক্ত খাবার খাওয়া।
  • স্বল্প ফ্যাটযুক্ত ডায়েট অনুসরণ করুন।
  • সপ্তাহের বেশিরভাগ দিনে কমপক্ষে ৩০ মিনিট ব্যায়াম করুন।
  • আপনার ডাক্তারের সাথে নিয়মিত চেক-আপ করুন

ধূমপান করবেন না বা তামাক ব্যবহার করবেন না অ্যালকোহল পরিহার করুন।

এখন আসি আসলে আমাদের সিকেডি আছে কীভাবে আমরা জানব?

আপনার কিডনি খারাপভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হওয়া পর্যন্ত সিকেডির সাধারণত কোনও লক্ষণ থাকে না। আপনার কিডনি কতটা ভালো কাজ করছে তা জানার একমাত্র উপায় হল পরীক্ষা করা। কিডনি রোগের জন্য পরীক্ষা করা সহজ। কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য এই পরীক্ষাগুলো সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের কাছে জিজ্ঞেস করুন :

ইজিএফআর (আনুমানিক গ্লোমেরুলার পরিস্রাবণ হার)

১।        প্রস্রাব পরীক্ষা : আপনার প্রস্রাবে রক্ত বা প্রোটিন রয়েছে কিনা, তা দেখার জন্য এই পরীক্ষা করা হয় (প্রস্রাব করা)

২। রক্তচাপ

আপনার রক্ত পাম্প করতে আপনার হৃদয় কি কঠোর পরিশ্রম করছে, তা দেখার জন্য এই পরীক্ষা করা হয়। উচ্চ রক্তচাপ কিডনি রোগ হতে পারে, তবে কিডনি রোগ উচ্চ রক্তচাপের কারণও হতে পারে। কখনও কখনও উচ্চ রক্তচাপ আপনার কিডনি ভালো কাজ করছে না এমন একটি লক্ষণ। বেশিরভাগ মানুষের জন্য একটি সাধারণ রক্তচাপ ১২০/৮০ (৮০ এর বেশি ১২০) এর চেয়ে কম হয়। আপনার রক্তচাপটি কী হওয়া উচিত, তা আপনার ডাক্তারকে জিজ্ঞোস করুন।

সিকেডি কীভাবে চিকিৎসা করা হয়?

আপনার কিডনি ক্ষতি সাধারণত স্থায়ী হয়। যদিও ক্ষতিটি স্থির করা যায় না, যতক্ষণ সম্ভব আপনার কিডনি যথাসম্ভব স্বাস্থ্যকর রাখার পদক্ষেপ নিতে পারেন। আপনি ক্ষতি আরও খারাপ হতে থামাতে সক্ষম হতে পারে। ডায়াবেটিস হলে আপনার রক্তে শর্করাকে নিয়ন্ত্রণ করুন। স্বাস্থ্যকর রক্তচাপ রাখুন। কম লবণ অনুসরণ করুন, কম ফ্যাটযুক্ত ডায়েট সপ্তাহের বেশিরভাগ দিনে কমপক্ষে ৩০ মিনিট ব্যায়াম করুন। স্বাস্থ্যকর ওজন রাখুন। ধূমপান করবেন না বা তামাক ব্যবহার করবেন না। অ্যালকোহল সীমাবদ্ধ। আপনার কিডনি সুরক্ষায় সহায়তা করতে পারে এমন ওষুধ সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলুন। আপনি যদি কিডনি রোগকে তাড়াতাড়ি ধরেন, তবে আপনি কিডনির ব্যর্থতা রোধ করতে সক্ষম হতে পারেন। যদি আপনার কিডনি ব্যর্থ হয়, তবে বেঁচে থাকার জন্য আপনার ডায়ালাইসিস বা কিডনি প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হবে।

  • সিকেডির জন্য কিডনি বান্ধব ডায়েট চার্ট

আপনার দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ (সিকেডি) হলে আপনার কিডনি-বান্ধব খাবারের পরিকল্পনা নেওয়া উচিত। আপনি যা খান এবং কী পান তা আপনাকে স্বাস্থ্যকর রাখতে সহায়তা করবে। কিডনি-বান্ধব ডায়েট সেই খাবারগুলোতে আপনার খনিজগুলো যাতে আপনার দেহে তৈরি হতে না দেয় সে জন্য নির্দিষ্ট কিছু খাবার সীমাবদ্ধ করে আপনার কিডনিকে আরও ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে পারে। বিশেষ করে যেসব রোগী রেনাল ফেইলিউরে ভুগছেন অথবা যাদের ক্রিয়েটিনিন নরমালের চেয়ে বেশি, তাদের জন্য প্রযোজ্য খাদ্য তালিকা। এখন দেখি কিডনি রোগীদের কি খাওয়া যাবে কি খাওয়া যাবে না।

  • যেসব ফল খাওয়া যাবে :

আপেল, আনারস, আঙুর, তরমুজ, নাশপাতি, চেরিফল, স্ট্রবেরি।

  • যেসব ফল খাওয়া যাবে না

কলা, আম, কমলা, আনার, পেঁপে, খেজুর, কিসমিস।

  • যেসব সবজি খাওয়া যাবে

বাঁধাকপি, গাজর, ফুলকপি, শশা, বিট, শালগম, মুলা, বেগুন, পটল, চিচিঙ্গা, লাউ, সাজনা, চালকুমড়া, ধুন্দল, ডাঁটা।

  • যেসব সবজি খাওয়া যাবে না

পালংশাক, টমেটো, মিষ্টি কুমড়া, আলু, ঢেঁড়শ, শিম, বরবটি, কাঁঠালের বীচি, শিমের বীচি, কচু, মিষ্টি কুমড়ার বীচি, লালশাক, কল্মি শাক, ডাঁটা শাক, হেলেঞ্চা শাক, কচু শাক।

  • যেসব শর্করা জাতীয় খাবার খাওয়া যাবে

ভাত, সাদা পাউরুটি, রুটি, শুষ্ক খাদ্যশস্য, নুডুলস, পাস্তা।

  • যেসব শর্করা জাতীয় খাবার খাওয়া যাবে না

পটেটো চিপস, পুরো শস্যের রুটি।

  • যেসব দুধ পণ্য খাবার খাওয়া যাবে

টক দই, স্কিং ওর ফ্যাট ফ্রি মিল্ক, সুগার ফ্রি পুডিং/ আইস ক্রিম।

  • যেসব দুধ পণ্য খাবার খাওয়া যাবে না :

পনির, কাস্টার্ড, পুডিং, আইস ক্রিম, মিষ্টিযুক্ত দই।

  • যেসব আমিষ জাতীয় খাবার খেতে পারবে: মুরগি, কাটা মাংস, মাছ, সীফুড, ডিম।
  • যেসব আমিষ জাতীয় খাবার খেতে পারবে না : গরুর কলিজা, মুরগির কলিজা, মাছের ডিম, গোল মরিচ, সব ধরনের ডাল, হটডগস, টিনজাত মাংস, বাদাম, চিনা মাখন।
  • যেসব পানীয় পান করা যায়

কফি, চা, ডায়েটের জিনিস, যা স্পষ্ট (ডায়েট স্প্রাইট)।

  • যেসব পানীয় পান করা যায় না 

চকলেট ড্রিংক, কোকাকলা, পেপসি, দুধের তৈরি ড্রিংক।

সাধারণ কিডনি রোগীর প্রোটিন, সোডিয়াম, পটাশিয়াম ও পিউরিনযুক্ত খাবার নিয়ন্ত্রণ করতে হয়, তা নিম্নে দেওয়া হল :-

১.         প্রথম শ্রেণির প্রোটিন থেকে ৫০শতাংশ প্রোটিন গ্রহণ করতে হবে। যেমন : মাছ, মাংস, ডিম।

২.         দ্বিতীয় শ্রেণির প্রোটিন চাল, আটা, ময়দা, সুজি ও সাবু।

৩.         কম পটাসিয়ামযুক্ত সবজি : যেমন, লাউ, কুমড়া, ঝিঙা, চিচিঙ্গা, মূলা, শশা, সীম (বীচি ছাড়া), ধুন্দল খেতে পারেন।

৪.         বেশি পটাসিয়ামযুক্ত সবজি সিদ্ধ করে পানি ফেলে রান্না করতে হবে। যেমন;- আলু, কাঁচা কলা, কাঁচা পেঁপে, গাজর, ডাটা শাক, নটে শাক, পুঁইশাক, সজনে, কলার মোচা, টমেটো, করলা।

৫.         কম পটাসিয়ামযুক্ত ফল- আপেল, পেয়ারা, পাঁকা পেঁপে, নাশপতি, জারুল, বেল, আনারস খেতে পারবেন। দিনে যে কোনো একটি ফলের ৫০-১০০ গ্রাম রোগীর অবস্থা অনুযায়ী।

৬.        বেশি পটাসিয়ামযুক্ত ফল- আম, জাম, লিচু, আনার, কলা, আমড়া, কামরাঙা, আমলকি, ডাবের পানি, নারিকেল, কমলা, আঙুর, কাঁঠাল, বরই, লেবু ইত্যাদি।

৭.         কম পিউরিন যুক্ত খাবার : দুধজাতীয় খাবার, ডিমের সাদা অংশ, তেল, চাউল, পাউরুটি, আটা, সুজি, সাবু খেতে পারবেন।

৮.         বেশি পিউরিন যুক্ত খাবার – গরুর মাংস, হাঁসের মাংস, কলিজা, মগজ, চিলড়ি মাছ, মাছের ডিম, সামুদ্রিক মাছ, শুঁটকি মাছ, ফুলকপি, বাঁধাকপি, পালংশাক, কচু ও কচুজাতীয় সবজি, পুঁইশাক, বেগুন খাবেন না।

৯.         লবণাক্ত খাবার- বেকিং পাউডার, বোতলজাত খাবার, চিপস, পপকন, বাদাম, আচার, কোমলজাতীয় পানীয়, সস, শুকনা ফল ও সবজি, মুড়ি চানাচুর ও পাতে আলগা লবণ খাবেন না।

১০.       পানির পরিমাণ কতটুকু নির্ধারণ করা যায়, তা- চা কফি, এবং তরল যা খাচ্ছেন সব একসঙ্গে খেতে হবে।

১১.       ডাল, বীচি জাতীয় সবজি যেমন- সিমের বীচি, কাঁঠালের বীচি, করল্লার বীচি, পুঁইশাকের বীচি ইত্যাদিতে প্রচুর পটাসিয়াম আছে এগুলো না খাওয়া ভালো।

১২.       ডাল বা দুধ খেতে পারবেন মাছ মাংসের পরিবর্তে সপ্তাহে এক দিন/ এক বেলা।

১৩.       মাছ/ মাংস/ দুধ /ডিম /ডাল পরিবর্তনযোগ্য।

দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ (সিকেডি) কিডনি ক্রিয়া ক্রমান্বয়ে হ্রাস দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, যার অর্থ কিডনি বর্জ্যগুলো ফিল্টার করতে পারে না এবং রক্তে জল এবং অ্যাসিড পাশাপাশি তাদের উচিতও নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। ৭৫ শতাংশ ক্ষেত্রে, সিকেডি তিনটি অবস্থার মধ্যে একটির কারণে ঘটে : ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ বা গ্লোমারুলোনফ্রাইটিস, গ্লোমেরুলির প্রদাহ, যা নেফ্রনের একটি উপাদান (কিডনির কাঠামোগত এবং কার্যকরী একক)। সুতারং কিডনি সুস্থ্য রাখতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলুন, সঠিক নিয়মে খাদ্য অভ্যাস গড়ে তুলুন।

লেখক : চিকিৎসক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়।

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

2 Comments

Asit Kumar Chakravorty · November 15, 2021 at 9:47 am

Awareness of our health is very important. This’ll help for much people. Thank you for your informative write up.

Anwar · November 15, 2021 at 10:00 pm

Very important information and useful to everyone. Thank you Doctor Mehedi Hasan.

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *