ই-পেপার

আল আসাদ মোঃ মাহফুজুল ইসলাম

এক.

তবে সবই কি নিউরন-হরমোন-জেনেটিক্স এর খেলা?

রোমিও জুলিয়েট আত্মহত্যা করে প্রচলিত আইন অনুযায়ি ক্রিমিনাল অফেন্স করেছে। তাদেরকে প্ররোচিত করার জন্য লরেন্সের বিচার হবার কথা। নাকি নচিকেতা যা বলেছেন, ‘ভালোবাসা আসলে তো পিটুইটারির খেলা, আমরা বোকারা বলি প্রেম?

লেডি ম্যাকবেথ খুনের প্ররোচনা দিয়ে রক্তের দাগ মুছার জন্য কেনইবা বার বার হাত ধৌত করেছিলেন? মানুষ কেন এমন করে, কেন অপরাধ করে, অপরাধ করে কেনইবা অনুতপ্ত হয়-এসবের পিছনে নিউরন হরমোন জেনেটিক্সের কোন গুটিবাজি আছে কিনা- এমন বিষয় নিয়েই বন্ধু শ্যাসির সাথে কথা বলতে চেয়েছি। কিন্তু সে একদম এসব ফালতু বকবকানি শুনতে চায়না, তাই ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে আজ এসব শুনাবো বলে ভেবেছি।

এক. ৬৪ বছরের নিউইয়র্কের নিপাট ভদ্রলোক Mr. Weinstein তার স্ত্রীকে ম্যানহাটনের ১২ তলা বিল্ডিং থেকে মেরে ফেলে দেন। বিচারিক আদালতে স্বীকারও করেন। কিন্তু তবুও তার সাজা সেই অর্থে হয়নি। একসময়ের ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী রবার্ট পিলকে হত্যা করতে গিয়ে M’Naghten তার প্রাইভেট সেক্রেটারি এডোয়ার্ড ড্রামান্ডকে হত্যার দায়ে তার মৃত্যুদন্ড হয়নি। যা M’Naghten Rule নামে পরিচিত।

এসব রায়ের পিছনে আসামীদের মনন ও সমকালীন সমাজের প্রভাব বা Neurolaw বিজ্ঞ বিচারকরা আমলে নিয়েই রায় দিয়েছে। কোন ঘটনার পূর্বে মানুষের মননে কি ঘটে তা নিয়ে বিশ্বখ্যাত মনোবিজ্ঞানী রবার্ট সাপলস্কি ‘Behave: The Biology of humans at our best and worst’ বইয়ে আমরা কেন কেমন আচরণ করি তা মোটাদাগে হরমোনের খেলা (যেমন Amygdala vs prefrontal cortex), ইন্দ্রীয়ের প্রতিক্রিয়া এবং সমাজ ও সংস্কৃতির সার্বক্ষণিকভাবে প্রভাবকে উল্লেখ করেছেন। রিচার্ড এলেকজান্ড The Biology of Moral Systems বইতে বলেছেন Modern Society is filled with myths. দ্বান্দ্বিকতায় ভরপুর মানব মন। সবচেয়ে ধার্মিক মানুষটাই হয়তো রাত জেগে কোন সুন্দরীর সাথে বউ রেখে গোপনে ফেসবুকে চ্যাটিং করছে। যাকে ছাড়া একটা দিনেও বেঁচে থাকা অসম্ভব, হয়তো সেই একদিন তার সবচেয়ে বড় শত্রু হয়ে যাচ্ছে। মানুষ একইসাথে শান্তিপ্রিয় ও হিংস্র, দয়ালু ও লোভী, বিনয়ী ও বিপ্লবী, ধার্মিক ও বকধার্মিক, প্রেমিক ও পাষন্ড, নির্ভীক ও ভীরু, নির্দোষ ও দোষী। Morris Hoffman ‘The Punisher’s Brain: The Evolution of Judge and Jury’ তে লিখেছেন মানুষ শাস্তি দিয়ে Atavistic Pleasure বা আদিম উন্মাদনায় ভাসে। মানুষের মাথায় Animal Impulse I Social Reality’র দ্ধন্ধ সোস্যাল মিডিয়ার এই যুগে আরো প্রখর হচ্ছে, বইছে নিউরনে সন্দেহের সুবাতাস বা Neuroskepticism ও লোক দেখানো পরার্থপরতা বা Pathological Altruism. পক্ষ বিপক্ষ কখনো কখনো ভাবে war is peace বা freedom is slavery বা cold blooded kindness. মানবমন নিয়ে Marvin Minsky এর মন্তব্য ‘internal forces I do not understand’.

সমাজে সমাজে সুকোমল বৃত্তির বিকাশের পাশাপাশি হরমোনের সুষম উন্নয়ন জরুরী। সিঙ্গাপুরের চেয়ে হন্ডুরাসে ৪৫০ গুন বেশী খুন হয়! আইন প্রয়োগের সাথে ব্যক্তি বিকাশ, সমাজ ও সংস্কৃতির সামষ্টিক উন্নয়নের কারণেই কোথাও অপরাধ বেশী, কোথাও কম। সিঙ্গাপুর উন্নত এই জন্য অপরাধ কম বিষয়টি এমন নয় ‘Poverty is not a predictor of crime as much as poverty amid plenty is.’ ধনী ও অভিজাত হওয়ার মধ্যে পার্থক্য বিশাল। Neuroethics এর জন্য Stillness রং ধূসর মানুষ বড় অস্থির, সময় বড় অস্থির। Blaise Pascal এর মতে all humanity’s problem stem from man’s inability to sit quietly in a room alone.’ কোন ঘটনা ঘটার সেকেন্ডপূর্বের যে নিউরোলজি, ঘণ্টাপূর্বের হরমোন, বছরপূর্বের জেনেটিক্স এর নিয়ন্ত্রণ ও সুষম উন্নয়ন আগামীদিনের সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ। আমাদের শিখতে হবে “Free will is an illusion but you’re still responsible for actions.’

সুস্থ সুন্দর জীবন যাপনই একবিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে বড় হাতিয়ার। Living well is the best revenge.

দুই.

“প্রাচীন বটের নীচে বসিব পুকুরঘাটে নীরবে, নির্জনে”

মানুষ দিন দিন বড় একা হয়ে যাচ্ছে। অনেক কিছু থেকেও যেন কিছুই নেই। অনেকের মাঝে থেকেও নিতান্তই একাকী আমরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শতাধিক বন্ধু, সাময়িক উপকারও করতে চায়, যে কোন ছবি দিলেই প্রশংসায় ভাসিয়ে দেয়, কিন্তু দিন শেষে দীর্ঘদিনের দায়ভার এড়িয়ে যায়। সাময়িক সুখগুলোই দীর্ঘস্থায়ী শান্তির পথে অন্তরায় কিনা সে নিয়ে কথা হয় বন্ধু শ্যাসির সাথে। আমার এইসব অর্বাচীন আলোচনায় শ্যাসি বেশ বিরক্ত, তবুও তারেই বলি, কানে কানে না বলা অনেক কথা।

মৃন্ময়ী মানুষের একাকিত্ব নিরসনে দরকার নির্জনতা ও নিষঙ্গতা (Solitude বা Being alone). এইসময়ে এক মানুষের সাথে শত মানুষের কথা হলেও, সবচেয়ে বড় Missing Dot হচ্ছে, কথা হয়না নিজের সাথে, নিজের আত্মার সাথে। এতো বেশী চিত্তবিক্ষেপ বা distractions, এতো বেশী ডিজিটাল ইস্যুজ, এতো বেশী ভার্চুয়াল বন্ধু বান্ধব, এতো বেশী তথ্য-অতথ্য-মিথ্যা তথ্য, বিভিন্ন মাধ্যমে অনেকের সাথে এতো বেশী বিশ্বাসভংগকারী গোপন যোগাযোগ, জীবন-জীবিকা, কাজ-কর্ম, পরিবার সন্তান সব, বাজার সদাই, যুদ্ধবিগ্রহ সব মিলিয়ে মানুষের মস্তিষ্ক এখন বিরাট বিভ্রাট বা chaotic mess.

মানবমন ও মস্তিস্কের এই বিভ্রাট থেকে মুক্তির জন্য cessation of noise from within দরকার। প্লেটো, সেনেকা, মার্কুস অরেলিয়ুস, রুশো, লিংকন, চার্চিল, রুজভেল্ট, থেকে শুরু করে অনেকেই মুক্তির পথে পৌছেছেন নির্জনে, বিচ্ছিন্নে। নির্মোহ নির্জনতার (Choosing Solitude over buszness) মাধ্যমেই মেটাবিশ্বের মানুষের মুক্তি মিলতে পারে। জেনারেল ম্যাটিসের মতে The Leader who is placid inside is much more formidable in battle.’ ব্যস্ততম মানুষগুলোও মননের ও নিউরনের সুপ্রসস্ততা ও সুস্থিরতার জন্য (sacret and elongated space) চলে যায় নির্জনে। ধর্মীয় গুরু থেকে শুরু করে আমেরিকান প্রেসিডেন্ট, বিল গেটসসহ অনেকেই এখন একটা সময় একান্তই একা কাটান (Being Alone). এই নির্জনতার সাথে যদি স্রস্টাকে সংযুক্ত করা যায়, পাওয়া যেতে পারে The Light in the Heart বা শান্ত আত্মার টেকসই প্রশান্তি। জীবনের সবকিছু হারিয়ে বিধস্ত মানবী Catherine Nicoli এর টেডটক The Importance of Solitude এ বর্ণনা করেছেন কিভাবে স্মার্টফোন, ডিভাইস ও মানব সংস্পর্শ ছেড়ে নতুন ভাবে টেকসই প্রশান্ত আত্মা পেয়েছেন। Philip Koch এর ‘Solitude: A Philosophical Encounter’ এ দার্শনিকদের নির্জনতা বিছিন্নতার কথা বলেছেন। Jim Collins  তার ‘Lead Yourself First: Inspiring leadership through Solitude’ এ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের সফল মানুষদের জীবনে নির্জনতা বিছিন্নতা কিভাবে প্রভাব ফেলেছে তার কথা বর্ণনা করেছেন।

মানুষ মাত্রই ভুল। ভুল সবই ভুল। কিন্ত ভুলই শেষকথা নয়, এটাই জীবনের প্রারাম্ভিকতা মাত্র। জন্মযাত্রা আসলে অন্ধকার থেকে আলোকযাত্রা। সকল ধর্মগুরু, সকল প্রশান্ত আত্মার মানুষ আঘাতপ্রাপ্ত হয়েই, পেইনের মধ্যে দিয়েই আলোদ্যুতি ছড়িয়েছেন নিজের আত্মাকে আলোকময় করেই…নিরিবিচ্ছিন্ন নির্জনতা বা ধ্যানের মাধ্যমে, ¯্রষ্টার সান্যিধ্যে। Solitude is Self Love.

মিথ্যেভরা মুঠোফোনের শতসহস্র সংযোগ বিছিন্ন করে সোদামাটির গন্ধে দগ্ধীভূত আত্মার সাথে একলা একান্তে কথা বলতে মন চায়; মন চায় কোন সাগর কিনারায় শূন্য বালুচরে রহস্যময়ী অন্ধকারে ধ্যানমগ্ন হয়ে কথা বলি তারই সাথে…

মুক্তি চাই এই মিথেভরা মায়াজাল থেকে। শ্যাসি, তুমি কি হবে, নির্জন নিরিবিচ্ছিন্ন যাত্রার একক সাহসিকা সারথী? ‘তুমি আর আমি/ প্রাচীন বটের নিচে/ বসিব পুকুরঘাটে নীরবে, নির্জনে।’

লেখক : পুলিশ সুপার, র‌্যাব-৬, খুলনা।

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x