ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

সুমন পালিত

চিরায়ত বাংলা সংগীতের সেই গানটির কথা সবারই জানা। ‘মন মাঝি তোর বৈঠা নে রে আমি আর বাইতে পারলাম না।’ বৈঠার সঙ্গে সম্পর্ক নৌকার। নৌকা এখানে জীবনের প্রতিরূপ। ভাটিয়ালি গানের এ অমর পঙ্গক্তিমালায় জীবনকে তুলনা করা হয়েছে নৌকার সঙ্গে। জীবনের সঙ্গে নৌকার সম্পর্ক অন্যভাবেও বলা যায়। সমুদ্র ভ্রমণ যারা করেছেন তারা জানেন, প্রতিটি জাহাজে লাইফবোট থাকে। জাহাজ যখন দুর্ঘটনায় পড়ে তখন এই লাইফবোট হয়ে দাঁড়ায় বাঁচার বিকল্প উপায়। লাইফবোট শব্দটির বাংলা প্রতিশব্দ জীবনতরী।

নৌকার সঙ্গে সভ্যতার সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ঠ। সেই প্রাচীনকালে সভ্যতার শুরুতেই নৌপথ ছিল যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম। তাই ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যায়, প্রতিটি সভ্যতা গড়ে উঠেছে নদীকে কেন্দ্র করে। পাঁচ হাজার বছর আগে নগর সভ্যতার সূত্রপাত হয় নীল নদ বিধৌত মিশরে বা দজলা ফোরাতের তীরে। নদীর তীরে সভ্যতা গড়ে ওঠার পেছনে ছিল দুইটি কারণ। প্রথমত জমি চাষের জন্য সেচ সুবিধা পাওয়া। দ্বিতীয়ত নদীপথে যাতায়াতের সুবিধা। বলাই বাহুল্য, নৌকা বা ভেলা ছিল নৌপথে চলার একমাত্র মাধ্যম।

নৌকার উদ্ভব কবে, কোথায় হয় আজ তা জানার উপায় নেই। নদীর সঙ্গে সভ্যতার সম্পর্কের কথা মনে রেখে অনুমান করা যায় নীল নদ অথবা দজলা ফোরাতের তীরবর্তী মানুষ সম্ভবত প্রথম নৌকার ব্যবহার রপ্ত করেছিল। এমনও হতে পারে নৌকার প্রথম উদ্ভব হয়ত এই বাংলাদেশেই। নদ-নদী, খাল-বিল, হাওড়-বাঁওড় আর বানের এই দেশে বর্ষাকালে নৌকা ছাড়া চলাচলের কোনো উপায় ছিল না বললেই চলে। কালের বিবর্তনে নৌকার ওপর নির্ভরশীলতা কমে এলেও বন্যার সময় কিন্তু এ আদিম বাহনটি জানিয়ে দেয় তার অমরতার কথা। বিংশ শতাব্দী পর্যন্ত বর্ষা মৌসুমে বন্যার প্রকোপ দেখা দিলেই রাজধানী ঢাকার আট ভাগের এক ভাগ লোক নৌকার ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়তো। রাজপথেও চলতো নৌকা। বিএনপি আমলে আমার এক আওয়ামী লীগার বন্ধু রসিকতা করে বলেছিলেন, বর্ষা মৌসুম এলেই রাজধানীতে নৌকার শোডাউন তাদের দলের জন্য খুবই সুখবর। জানা কথা, নৌকা হলো আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক। সেই পাকিস্তান আমলে ১৯৫৪ সালে স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে গঠিত হয় যুক্তফ্রন্ট। শেরেবাংলা একে ফজলুল হক, মওলানা ভাসানী ও শহীদ সোহরাওয়ার্দী ছিলেন যুক্তফ্রন্টের প্রধান নেতা। নির্বাচনে তারা নৌকা প্রতীক ব্যবহার করেন। পরবর্তীতে তা আওয়ামী লীগের প্রতীকে’ পরিণত হয়।

ডাঙ্গায়ও যে সাধারণ নৌকা নয়, জাহাজও চালানো সম্ভব, তার প্রমাণ রেখেছেন মধ্যযুগে তুরস্কের একজন ওসমানিয়া সুলতান। শত্রুপক্ষকে ধোঁকা দিতে তিনি স্থলপথে জাহাজ নিয়ে যান নির্দিষ্ট লক্ষ্যস্থলে। মসৃণ কাঠের তক্তা কৌণিক আকারে পেতে রেখে তাতে পিচ্ছিল জাতীয় দ্রবণ লাগানো হয়। তারপর জাহাজ টেনে নেওয়া হয় দীর্ঘপথ বেয়ে সমুদ্রে। যুদ্ধজয়ের এ কৌশল ছিল ট্রয় নগরীর যুদ্ধে কাঠের ঘোড়া ব্যবহারের মতোই চমকপ্রদ।

ঐতিহাসিকদের মতে, আজ থেকে আট হাজার ৪০০ বছর আগে খ্রিস্টপূর্ব ৬৪০০ অব্দে হল্যান্ডে প্রথম কাঠের নৌকা ব্যবহৃত হয়। স্মর্তব্য, হল্যান্ড শব্দের অর্থই হলো নিচু ভূমি। বাংলাদেশের মতো এ দেশেও রয়েছে নদী-নালা ও জলাভূমির ব্যাপকতা। অনুমান করা হয়, কাঠের গুঁড়ির মধ্যাংশ কেটে সেই আদিকালে নৌকা তৈরি হতো। বাংলাদেশে এখনো এ নৌকার প্রচলন রয়েছে। যাকে বলা হয় ডোঙ্গা। তালগাছের মধ্যে খোল কেটে যা তৈরি করা হয়। আমাদের কবিতা-সাহিত্যেও স্থান পেয়েছে নৌকার কথা। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের ‘সোনার তরী’ এক বিখ্যাত কবিতা। ‘গান গেয়ে তরী বেয়ে কে আসে পারে/ দেখে যেন মনে হয় চিনি উহারে…।’

মনে করা হয় নৌকার আদিরূপ হলো ভেলা। কয়েকটা হালকা গাছের গুঁড়িকে পাশাপাশি বিছিয়ে একসঙ্গে বেঁধে ভেলা তৈরি করা হতো। বিগত শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে নরওয়েবাসী অভিযাত্রী থর হেইয়েরডাল তার পাঁচজন সঙ্গী নিয়ে প্রশান্ত মহাসাগর পাড়ি দেওয়ার উদ্যোগ নেন। এ দুঃসাহসিক অভিযানে ব্যবহৃত ভেলার নাম ছিল কনটিকি। মিশরের নীল নদের তীরবর্তী মানুষ কাঠের নৌকার ব্যবহার জানত। কিন্তু সে দেশে গাছ পর্যাপ্ত না থাকায় তারা নলখাগড়া দিয়ে নৌকা বানাত। প্যাপিরাস নামের এ নলখাগড়া প্রথমে আঁটি করা হতো। তারপর তা নৌকার আকারে বোনা হতো। তিন হাজার ২০০ বছর আগে পেরুর আদিবাসী চিমু ইন্ডিয়ানরাও নলখাগড়া দিয়ে নৌকা এবং ভেলা তৈরি করত। রেড ইন্ডিয়ানরা এখনো চামড়ার খোলের হালকা নৌকা তৈরি করে, যার নাম ক্যানো’। উত্তর মেরুর অধিবাসীরা ‘উমিয়াক’ নামের বড় আকারের নৌকা ব্যবহার করে। পুরো পরিবার এবং ঘর-সংসারের জিনিসপত্র তাতে বহন করা হয়। তারা ‘কায়াক’ নামের এক ধরনের হালকা নৌকাও তৈরি করে। তিমি মাছের হাড় এবং সমুদ্রের জলে ভেসে আসা কাঠ দিয়ে তৈরি হয় এ নৌকা। শীল মাছের চামড়া দিয়ে এ নৌকার দেহ ঢাকা থাকে। মাত্র একজন লোক তাতে চড়তে পারে।

উত্তর মেরুর অধিবাসীরা শীল ও সিন্ধু ঘোটক শিকারে ব্যবহার করে এ নৌকা। আমাদের দেশের বেদে সম্প্রদায় নৌকাকেই তাদের বসতবাড়ি বলে মনে করে। নৌকাবহর করে এ যাযাবর সম্প্রদায় দলবদ্ধভাবে চলাচল করে। সাপের খেলা দেখানো তাদের প্রধান পেশা। নৌকাকে দ্রুতগামী করার জন্য  সেই প্রাচীনকালেই পালের ব্যবহার শুরু হয়। তিন হাজার বছর আগেও মিশরে পালতোলা নৌকার অস্তিত্ব ছিল। সেই আমলের মৃৎশিল্পে আঁকা বিভিন্ন চিত্রে তার প্রমাণ পাওয়া যায়। আনুমানিক হিসাবে নৌকায় পালের ব্যবহার শুরু হয় অন্তত আট হাজার বছর আগে। প্রাচীনকালে চামড়া জুড়ে জুড়ে পাল বানানো হতো। মিশরে প্যাপারাস গাছের ছালের ফালি বুনে ও চীনে মাদুর দিয়ে তৈরি হতো নৌকার পাল। নৌকারই বর্ধিত রূপ স্টিমার, জাহাজ, লঞ্চ ইত্যাদি। এমনকি সাবমেরিন বা ডুবো জাহাজও এক জাতীয় নৌকা। প্রতিটি ডুবোজাহাজ তৈরি হয় সুরক্ষার সম্ভাব্য সব কৌশল অবলম্বন করে। শত্রুর ওপর হামলার উপযোগী এ যুদ্ধজাহাজগুলোতে থাকে প্রতিপক্ষের হামলা প্রতিরোধের নানা ব্যবস্থা। কিন্তু তারপরও শত্রু পক্ষের টর্পেডো বা অন্যান্য অস্ত্রের আঘাতে শুধু নয়, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বহু সংখ্যক সাবমেরিন ডুবির ঘটনা ঘটেছে। মারা পড়েছে বিপুল সংখ্যক নাবিক। যার মধ্যে আণবিক শক্তিচালিত সাবমেরিনও রয়েছে। সর্বশেষ গত ১৯ এপ্রিল ২০২১ বুধবার নিখোঁজ হয়ে ইন্দোনেশিয়ার সাবমেরিন কে আর আই নাংগালা-৪০০২। তিনদিন পর আবিষ্কৃত হয় তার ধ্বংসাবশেষ। এর ৫৩ জন আরোহীর সবার সলিল সমাধি ঘটে।

টাইটানিক জাহাজের কথা সবারই জানা। এ প্রমোদ তরীর আকার ছিল বিশাল। যার মধ্যে খেলার মাঠও ছিল। এটি যখন উদ্বোধন করা হয় তখন বলা হয়েছিল একখ- শোলা ডুবলেও ডুবতে পারে কিন্তু টাইটানিক কখনো ডুববে না। অথচ টাইটানিক তার উদ্বোধনী যাত্রাই শেষ করতে পারেনি। খুব শিগগিরই তৈরি হতে যাচ্ছে ফ্রিডম শিপ নামের এক বিশাল জাহাজ। ২৫ তলার এই জাহাজের দৈর্ঘ্য চার হাজার ফুট। অর্থাৎ এক কিলোমিটারের চেয়েও বেশি। প্রস্থ ৭৫০ ফুট। উচ্চতা ৩৫০ ফুট। ফ্রিডম শিপে বিমান নামার ব্যবস্থা থাকবে। বসবাস করতে পারবে এক লাখ মানুষ। অর্থাৎ জাহাজটিই হবে একটি পরিপূর্ণ শহর। এটিকে একটি আলাদা দেশ বললেও খুব ভুল হবে না। পৃথিবীর অনেক দেশের লোকসংখ্যা এক লাখেরও কম।

নৌকার সঙ্গে ধর্মীয় উপকথারও রয়েছে গভীর সম্পর্ক। মুসলমান, খ্রিস্টান ও ইহুদিরা হজরত নূহ (আ.) বা নোহ-এর আমলের প্লাবনের কথা বিশ্বাস করেন। বাইবেল ও পবিত্র কোরআনে এ প্লাবনের বর্ণনা দেওয়া হয়েছে।

হজরত নূহ (আ.) ছিলেন আল্লাহর নবী। মানুষকে সত্য, সুন্দর ও কল্যাণের পথে আহ্বান করেন এ মহাপুরুষ। কিন্তু তিনি প্রত্যাখ্যাত হন। আল্লাহর কাছ থেকে নির্দেশিত হয়ে হজরত নূহ (আ.) তার দেশবাসীকে সতর্ক করে দেন। বলেন, সত্যের পথে ফিরে না এলে তাদের ওপর গজব নাজিল হবে। কিন্তু চোরা নাহি শোনে ধর্মের কাহিনি। হজরত নূহ (আ.) আল্লাহর নির্দেশ পেয়ে নৌকা নির্মাণ শুরু করেন। তার অনুসারীরা গাছ কেটে তৈরি করে বিশাল নৌকা। শুষ্ক ভূমিতে বিশালাকারের নৌকা নির্মাণÑতার গোত্রের লোকদের মধ্যে কৌতুকের সৃষ্টি করে। তারা হজরত নূহ (আ.)এর মানসিক ভারসাম্যতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। কিন্তু নৌকা তৈরি শেষ হতেই শুরু হয় প্রবল বর্ষণÑ দিনের পর দিন রাতের পর রাত বৃষ্টি আর বৃষ্টিতে মাঠ-ঘাট লোকালয় জলে থই থই হয়ে ওঠে। ভাসতে শুরু করে নূহের নৌকা। তার অনুসারীরা প্লাবনের আগেই আশ্রয় নেন নৌকায়। ফলে বেঁচে যায় তারা। আর অবিশ্বাসীদের সলিল সমাধি ঘটে ভয়াবহ প্লাবনে। নূহ (আ.) নবীর সময়কার প্লাবনকে একসময় নিছক কল্পকাহিনি বলে অভিহিত করা হতো। এখন বিজ্ঞানীরাও স্বীকার করেছেন সেই প্রাচীনকালে ভয়াবহ বর্ষণ ও প্লাবনের মুখে পড়েছিল পৃথিবী। বিজ্ঞানীদের কেউ কেউ নূহের নৌকার ধ্বংসাবশেষ অনুসন্ধানেও ব্যস্ত। তুরস্কের এক পাহাড়ে গত শতাব্দীর শেষদিকে হাজার হাজার বছর আগে তৈরি বিশালাকারের নৌকার ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কৃত হয়। প্রতœতাত্ত্বিকদের ধারণা, তারা নূহের নৌকাই খুঁজে পেয়েছেন।

মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপের ইতিহাসে নৌকা বিষয়ক আরেকটি ঘটনাও বেশ সাড়া জাগানো। আরব বীর তারেক স্পেন জয় করেন। আটলান্টিক সাগর পাড়ি দিয়ে স্পেনে ভিড়ে তারেকের নৌবহর। স্পেন জয়ের লক্ষ্য নিয়ে মরক্কোর মুসলিম বাহিনী সাগর পাড়ি দিলেও স্পেনে পৌঁছে তাদের মধ্যে দেখা দেয় হতাশা। বিশাল স্পেনীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে শ্রান্ত ক্লান্ত মুসলিম বাহিনী আদৌ জিততে পারবে কিনা সে সংশয়ও তাদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। তাদের কেউ কেউ অভিযান ক্ষ্যান্ত দিয়ে দেশে ফেরার পক্ষেও মত দেন। সৈন্যদের এ সংশয়ের বিষয়টি তারেকেরও গোচরীভূত হয়। তিনি তাদের নির্দেশ দেন যে জাহাজে করে তারা স্পেনে এসে পৌঁছেছে সেগুলো পুড়িয়ে দেওয়ার। সৈন্যরা যাতে জয় ছাড়া আর কোনো বিকল্প না ভাবে সে উদ্দেশ্যে নেওয়া হয় এ ব্যবস্থা। তারেকের এ কৌশল অবশ্য সফল হয়। তারেক বাহিনীর সদস্যরা উপলব্ধি করে যুদ্ধে তাদের জেতা ছাড়া বাঁচার কোনো পথ নেই। বিদেশ বিভূঁইয়ে পরাজয়ের অর্থই দাঁড়াবে সদলবলে প্রাণ হারানো। তাদের এই হার না মানা মনোভাবই স্পেন জয়ে সাহায্য করে।

নৌকা মানব সভ্যতাকে এগিয়ে নিতে অনেক অবদান রেখেছে। নৌকা বা বৃহৎ জাহাজে করেই কলম্বাস আমেরিকা জয় করেছিলেন। এ আশীর্বাদের পাশাপাশি নৌকাকে ব্যবহার করে মানুষের জন্য অভিশাপ ডেকে আনার ঘটনাও কম ঘটেনি। ভাইকিং জলদস্যুদের কথা অনেকেরই জানা। আমেরিকান আদিবাসীদের ওপর নির্মম হত্যাকা- চালিয়ে ব্রিটিশরা সেখানে উপনিবেশ স্থাপন করে। নৌযানে করেই তারা আফ্রিকা থেকে কালো মানুষদের নিয়ে যেত আমেরিকায়। তারপর গরু-ছাগলের মতো বিক্রি করা হতো দাস বিক্রির হাটে। নৌযানে করেই ব্রিটিশরা আমাদের দেশে এসেছিল বাণিজ্যের নামে। তারপর ঝোপ বুঝে কোপ মেরেছিল তারা। কেড়ে নিয়েছিল শাসনদ-। ২০০ বছরের গোলামির শৃঙ্খলে তারা এ দেশবাসীকে আবদ্ধ করে। মিয়ানমারে ব্রিটিশ উপনিবেশ স্থাপনের সঙ্গেও ‘নৌকা’ জাতীয় জলযানের সম্পর্ক রয়েছে। স্টিমারে করে ব্রিটিশরা অভিযান চালায় মিয়ানমারে। সে দেশের সৈন্যরা এ নৌযান দেখেই পালিয়ে যায়। স্টিমারের উৎকট হুইসেল, চিমনির কালো ধোঁয়া আর বিরাট আকার দেখে ঘাবড়ে যায় তারা। এটাকে স্বর্গলোক থেকে আসা কোনো রুদ্র দেবতা বা দৈত্য দানব বলে ভাবে তারা। বিনাযুদ্ধেই দখল হয় একটি বিশাল দেশ। 

  লেখক : সিনিয়র সাংবাদিক

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *