ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

ডিটেকটিভ ডেস্ক

পুলিশ ট্রাস্ট সিকিউরিটি এন্ড লজিস্টিকস লিমিটেড বাংলাদেশ পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্ট পরিচালিত একটি স্বনামধন্য নিরাপত্তা সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান। গত চার বছর যাবৎ সর্বোত্তম মানের পেশাদারিত্ব ও সফলতার সাথে ব্যাংক বীমা, শপিং কমপ্লেক্স, কর্পোরেট অফিস, কারখানা সহ বিভিন্ন ধরনের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে নিরাপত্তা সেবা প্রদান করে আসছে।

প্রাতিষ্ঠানিক নিরাপত্তা নিয়ে আমাদের গভীর জ্ঞান, সুদীর্ঘ অভিজ্ঞতা ও উচ্চ-স্তরের প্রশিক্ষণই আমাদের প্রতিষ্ঠানের মূল মন্ত্র। সারা দেশে ৬৪ জেলায় সম্প্রসারিত সেবা ও বিস্তৃত পরিসেবা নিয়ে সাজানো আমাদের এই প্রতিষ্ঠান যা সুরক্ষা সহ সর্বোত্তম নিরাপত্তা সেবা প্রদান করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, যা customer satisfaction survey বা গ্রাহক সন্তুষ্টি জরিপ দ্বারা প্রমাণিত।

পুলিশ ট্রাস্ট সিকিউরিটি এন্ড লজিস্টিক লিমিটেড বিভিন্ন দেশের দূতাবাস, আন্তর্জাতিক সংস্থা, কর্পোরেট হাউস, ব্যাংক বীমা সহ সকল আর্থিক প্রতিষ্ঠান, শপিং সেন্টার, হাসপাতাল, যে কোন কারখানা এবং অন্যান্য সরকারী ও বেসরকারী উভয় খাতের গ্রাহকদের নিরাপত্তা সেবা প্রদানে সক্ষম।

এক নজরে পুলিশ ট্রাস্ট সিকিউরিটি এন্ড লজিস্টিকস লিমিটেড: 

নাম                                                     :           পুলিশ ট্রাস্ট সিকিউরিটি এন্ড লজিস্টিকস লিমিটেড

প্রতিষ্ঠা সাল                                         :           ২০১৭

বর্তমান জনবল                                   :           প্রায় ১ হাজার (জুলাই’২১ পর্যন্ত)

বিভাগ অনুযায়ী জনবল                      :           ঢাকা-৭৩৯, চট্টগ্রাম-৫৩, বরিশাল-১৮, খুলনা-৩৭, ময়মনসিংহ-১৫, রাজশাহী-৪৭, রংপুর-২১ , সিলেট-৪২

বিস্তৃতি                                               :           সারা দেশ (৬৪ জেলা)

সেবা গ্রহণকারী প্রতিষ্ঠান সংখ্যা         :           ৩২ টি

সারা দেশে বিস্তৃত মোট পোস্ট         :           ১৪৩ টি

নির্বাচন প্রক্রিয়া ও প্রশিক্ষণ :

কোম্পানীর নিরাপত্তাকর্মীগণ আমাদের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ। তাই আমরা নিরাপত্তাকর্মীদের বাছাই করার ক্ষেত্রে কঠোর স্ক্রিনিং ও সর্বোত্তম মানদন্ড হিসেবে বিবেচনা করে থাকি, যেমন প্রতিটি নিয়োগকারীকে তার সহনশীলতা, কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলার সক্ষমতা যাচাই করার জন্য কঠোর শারীরিক যোগ্যতা পরীক্ষা করতে হয়, যা আমাদের গ্রাহকের উচ্চতর নিরাপত্তা কর্মী সরবরাহ করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

একজন ব্যক্তি নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে নির্বাচিত হলে, পুলিশ ভেরিফিকেশন করে তাকে সুপ্রশিক্ষিত প্রশিক্ষক দ্বারা পরিচালিত পূর্বাচল নিউ টাউন এ অবস্থিত বিস্তৃত জায়গা জুড়ে সু-বিন্যস্ত নিজস্ব ট্রেনিং সেন্টারে ১৫ দিনের প্রাথমিক আবাসিক প্রশিক্ষণ প্রদান করার ব্যবস্থা করা হয়। এই সময়ের মধ্যে মৌলিক বিষয় ছাড়াও, তাকে নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। উল্লেখ্য, বিশেষ টিমের জন্য আছে ২৮ দিনের দীর্ঘ্য মেয়াদী ব্যাপক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা।

 প্রশিক্ষণ কোর্সে নিম্নে বর্ণিত বিষয়াবলির উপর বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করা হয়:

          প্রতিরক্ষামূলক কৌশল প্রশিক্ষণ

          টহল কৌশল

          শারীরিক প্রশিক্ষণ

          আত্মরক্ষা কৌশল

          বেসিক গার্ডিং স্কিল

          সিকিউরিটি ইকুইপমেন্ট

          ঝুকি মূল্যায়ণ

          জরুরী উদ্ধার

          ভিআইপি এসকোর্ট

          ট্রাফিক সিস্টেম

          সিসিটিভি মনিটরিং

          প্রাথমিক চিকিৎসা এবং অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা

          বেসিক ইংরেজি         

          আচরণ এবং শিষ্টাচার ইত্যাদি সহ অন্যন্য প্রয়োজনী বিষয়

এছাড়াও গ্রাহকের বিশেষ চাহিদা অনুযায়ী কাস্টমাইজড প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়।

যোগাযোগ:

পুলিশ ট্রাস্ট সিকিউরিটি এন্ড লজিস্টিকস লিমিটেড

পুলিশ প্লাজা কনকর্ড, টাওয়ার # এ, লেভেল # ৬

রোড -১৪৪, গুলশান -১। ঢাকা-১২১২

 হটলাইনঃ +৮৮ ০১৮৪৭ ৪৬৬০০০, ০১৩২১ ১৪২০৯৫

আমাদের তদারকি পরিকল্পনা :

আমাদের পাঁচ স্তরের তদারকি ও তত্ত্বাবধানের ব্যবস্থা রয়েছে। তদারকি শুরু হয় মূলত (১) পোস্ট সুপারভাইজার, (২) পেট্টল ইন্সপেক্টর (৩) অপারেশন অফিসার (৪) অপারেশন ম্যানেজার এবং (৫) ২৪/৭ কন্ট্রোল রুম দ্বারা সুপারভিশনের মাধ্যমে। যে কোন অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদের ‘স্ট্যান্ড-বাই’ রিজার্ভ ফোর্স ও ইমার্জেন্সী রেসপন্স টিম বা “জরুরী সাড়া দল” রয়েছে যা গ্রাহকের অধিকতর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করে, এছাড়াও আমাদের দিন/রাতে তদারকি ব্যবস্থা রয়েছে যা পোস্টের নিরাপত্তা জোরদারে সহায়তা করে।

আপনি কেন পুলিশ ট্রাস্ট সিকিউরিটি থেকে সেবা গ্রহণ করবেন?

কারণ:

  • পুলিশ ট্রাস্ট সিকিউরিটির সকল নিরাপত্তা কর্মী ১০০% পুলিশ ভেরিফাইড
  • স্থানীয় থানার সাথে নিরাপত্তা পোস্টের সর্বাত্মক নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ
  • সর্বনিম্ন নিরাপত্তা প্রহরী সংক্রান্ত ঝুঁকি
  • তথ্যের উৎস হিসেবে স্থানীয় পুলিশকে সহায়তাকরণ
  • উচ্চ প্রশিক্ষিত এবং অনুপ্রাণিত গার্ড
  • নিরাপত্তা কর্মীর জন্য উচ্চতর বেতনকাঠামো এবং ইএফটি এর মাধ্যমে নির্দিষ্ট সময়ে বেতন প্রদান।
  • সংক্ষিপ্ত নোটিশে সমস্ত পরিসেবা প্রদানে সক্ষম
  • পেশাগত আচরণ এবং শিষ্টাচার পালন
ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *