ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

শামীমা বেগম পিপিএম

বাংলাদেশ পুলিশের সব নারী পুলিশের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্ক (BPWN) দেশের পেশাজীবী নারীদের সবচেয়ে বড় নেটওয়ার্ক। বিগত ২০০৮ সালে যাত্রা শুরুর পর থেকে নারী পুলিশ সদস্যদের অনুপ্রাণিত করতে BPWN নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। প্রাথমিক পর্যায়ে ইউএনডিপি’র সহায়তায় পুলিশ রিফর্র্ম প্রোগ্রাম (পিআরপি)-এর পৃষ্ঠপোষকতা পেলেও পিআরপির সমাপ্তির পর এটি নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত হচ্ছে। স্বনির্ভর হওয়ার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় এই নেটওয়ার্ক সফলভাবে কাজ করছে। এই নেটওয়ার্কের সদস্যগণ জাতীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পর্যায়েও তাদের কার্যক্রমের মাধ্যমে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপনে সক্রিয় রয়েছেন।

বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্ক এমন একটি সংগঠন, যার উদ্দেশ্য হলো যোগাযোগ ও নেতৃত্ব দেওয়ার মাধ্যমে নারী পুলিশ সদস্যদের কর্মক্ষেত্রে স্বীয় সম্ভাবনা সম্প্রসারণ ও উন্নয়নকল্পে কাজ করা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতায় ১৯৭৪ সালে ১৪ জন নারী বাংলাদেশ পুলিশে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। বর্তমানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গৃহীত বহুমুখী নারী ক্ষমতায়ন ও উন্নয়নের পরিকল্পনায় নারী পুলিশের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। যা আজ সাফল্য ও দক্ষতার মানদন্ডে সমাজে দৃশ্যমান অবদান রেখে চলেছে। বাংলাদেশ পুলিশের সব ইউনিটে ও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নেতৃত্ব দেওয়াসহ বাংলাদেশ পুলিশে বিভিন্ন পদমর্যাদার ১৫,২৩৫ জন (৭.৯৬%)  নারী পুলিশ সদস্য কর্মরত রয়েছেন। BPWN-এর অন্যতম লক্ষ্য হলো পুলিশে নারীর সক্ষমতা বৃদ্ধি ও পেশাদারী দক্ষতা বিকাশের মাধ্যমে জাতীয় ও বৈশ্বিক পর্যায়ে নারী নেতৃত্বের উন্নয়ন ও নারীবান্ধব কর্মপরিবেশ সমুন্নত করা।

বিগত ২০০৮ সালে ইউএনডিপি’র সহায়তায় পুলিশ রিফর্ম প্রোগ্রামের (পিআরপি) পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্ক যাত্রা শুরু করে যা শুরুতেই বেশ কিছু ইতিবাচক ফলাফল নিয়ে আসে। বিগত ২০১৫ সালে পুলিশ রিফর্ম প্রোগ্রামের সমাপ্তির পর BPWN স্বনির্ভরভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করে এবং বাংলাদেশ পুলিশের সকল স্তর ও পদমর্যাদার নারী পুলিশ সদস্যদের মাঝে যোগাযোগ স্থাপনের জন্য প্রতিটি পুলিশ ইউনিটে ফোকাল কমিটি গঠন করা হয়।

বিগত ২০০৮ সালে BPWN ১০টি উদ্দেশ্য সামনে নিয়ে আত্মপ্রকাশ করে, যা কৌশলগত পরিকল্পনার অংশ হিসেবে পর্যালোচনাপূর্বক প্রতিস্থাপিত হয়েছে। BPWN-এর কৌশলগত পরিকল্পনার দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা রয়েছে এবং কিছু মধ্যমেয়াদি, স্বল্পমেয়াদি পরিকল্পনা ও লক্ষ্য রয়েছে। উল্লেখ্য যে, নারী ও শিশুর নিরাপত্তা টেকসই উন্নয়নের পূর্বশর্ত। BPWN-এর কৌশলগত পরিকল্পনা নারী পুলিশ সদস্যদের দৃঢ় উন্নয়ন ও সমাজে নারীদের মাঝে নিরাপত্তাবোধ নিয়ে আসতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

BPWN কৌশলগত পরিকল্পনা (২০২১-২০২৩) :  এ কৌশলগত পরিকল্পনাটি BPWN এর মুকুটে একটি নতুন পালকের সংযোজন হিসেবে বিবেচিত হতে পারে, যা ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে এক অক্লান্ত এবং সফল যাত্রার মাধ্যমে এই পর্যন্ত এসেছে। পরবর্তীতে আগামী তিন বছরে কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য একটি রোডম্যাপ যৌক্তিক এবং পদ্ধতিগত পদ্ধতি ব্যবহার করে এর ডিজাইন করা হয়েছে।

UN Women Bangladesh এর সহযোগিতায় Jane Townsley, Senior Police Advisor to UN Women and Executive Director, IAWP- এ পরিকল্পনা প্রণয়নে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন।

বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ এবং BPWN এর প্রধান পৃষ্ঠপোষক ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) ও অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণের অংশগ্রহণে ৭ সেপ্টেম্বর ২০২১-এ এই কৌশলগত পরিকল্পনার শুভ উদ্বোধন করেন। সম্মানিত আইজিপি প্রত্যাশা করেন যে, কৌশলগত পরিকল্পনাটি একটি জেন্ডার সংবেদনশীল হিসেবে বাংলাদেশ পুলিশের সামগ্রিক কর্মক্ষমতা, নারীবান্ধব কর্মপরিবেশ ও জেন্ডার মেইন স্ট্রিমিং করতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। পরবর্তীতে আমন্ত্রিত অতিথিগণের সঙ্গে কৌশলগত পরিকল্পনা ২০২১-২০২৩-এর মোড়ক উন্মোচন করা হয়। 

ওই অনুষ্ঠান জুম সংযোগে বাংলাদেশ পুলিশের সব ইউনিট ও জাতিসংঘ কন্টিনজেন্টগুলো সংযুক্ত হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ পুলিশ, UN Women এবং BPWN ফেসবুক থেকে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত Ms. Mia Seppo, UN Resident Coordinator in Bangladesh  BPWN এর সঙ্গে কৌশলগত পরিকল্পনাটি বাস্তবায়নে ধারাবাহিকভাবে সহযোগিতা করার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। 

এই কৌশলগত পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে Shoko Ishikawa, Fomer Country Representative UN Women Bangladesh,Flora Macula, Head of Sub Office, Cox`s Bazar UN Women Bangladesh

Deborah Friedl, President, International Association of Women Police (IAWP)

Jane Townsley, Senior Police Advisor to UN Women and Executive Director, IAWP,

Amena Begam ,BPM ,President , BPWN এবং BPWN স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যান (২০২১-২০২৩) রিভিউ কমিটি, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এ দূরদর্শিতা এবং কৌশলগত চিন্তার সঙ্গে আন্তরিক সহযোগিতা ও প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখেছেন। এ কৌশলগত পরিকল্পনার কিছু মূল বিষয় এখানে উপস্থাপন করা হলো।

ভিশন

বাংলাদেশ পুলিশের সব ইউনিটে জেন্ডার ভারসাম্য ও নারীবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি এবং বাংলাদেশের সব নাগরিকের বিশেষ করে নারী ও শিশুদের জন্য জেন্ডার সংবেদনশীল পুলিশ পরিষেবা দেওয়া।

মিশন

নারী পুলিশের পেশাদারিত¦ ও দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে জাতীয় ও বৈশ্বিক পর্যায়ে নারী উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জন ।

মূলনীতি

নৈতিক দায়িত্ব: সৎ, স্বচ্ছ ও ন্যায়পরায়ণ হওয়া, নিষ্ঠা ও মর্যাদার সাথে কাজ করা, বৈচিত্র্যের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা।

উৎকর্ষ ও সম্ভাবনা : স্বীয় দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে পেশাদারিত্ব ও সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং সর্বদা সর্বোচ্চ অবদান রাখতে সচেষ্ট হওয়া।

সহযোগিতা : নিজেদের জ্ঞান, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা বিনিময়, পুরুষ সহকর্মী ও স্থানীয় জনগণের সাথে কাজ করে ইতিবাচক ফলাফল অর্জন।

উদ্ভাবনী নেতৃত্ব : প্রতিবন্ধকতা চিহ্নিত ও দূরীকরণে কার্যকরী, সাহসী ও দূরদর্শী পদক্ষেপ গ্রহণ। সমাধানগুলো শনাক্ত করে সঠিক যোগাযোগের মাধ্যমে ইতিবাচক ফলাফল অর্জন।

সামাজিক লক্ষ্য : পরিবর্তনশীল সমাজ ব্যবস্থায় নারী ও নারী পুলিশের চাহিদা অনুধাবন।

কৌশলগত লক্ষ্য

১।        বাংলাদেশ পুলিশে নারী পুলিশের সর্বোচ্চ অবদান নিশ্চিত করা;

২।        বাংলাদেশ পুলিশের সব পদ ও ইউনিটে নারী প্রতিনিধিত্ব বৃদ্ধি;

৩।        বাংলাদেশ পুলিশে নারী পুলিশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি সমর্থন;

৪।        বাংলাদেশ পুলিশে নারীদের জন্য উপযুক্ত কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করা;

৫। বাংলাদেশ পুলিশে BPWN এর অবদান সবোর্চ্চ পর্যায়ে উন্নীত করা, জেন্ডার সংবেদনশীল পুলিশ পরিষেবা প্রদান এবং সমাজে নারী ও শিশুর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

কৌশলগত ফোকাস ২০২১-২০২৩

* প্রথম বর্ষ : BPWN-এর কাঠামো বিকাশ, স্থায়িত্বের উন্নয়ন এবং প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষের জন্য প্রাক-প্রস্তুতি গ্রহণ।

* দ্বিতীয় বর্ষ : BPWN-এর সক্ষমতা বৃদ্ধি, সক্রিয় প্রচারণা, BPWN ও এর কার্যক্রম সম্পর্কে পুরুষ সহকর্মীদের সচেতন করা, অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক স্টেকহোল্ডারদের সক্রিয়ভাবে অন্তর্ভুক্ত করা এবং দাতা গোষ্ঠী ও বাংলাদেশ পুলিশ থেকে তহবিল সংগ্রহ করা।

* তৃতীয় বর্ষ : প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষে গৃহীত পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা। বাংলাদেশ পুলিশে জেন্ডার-সংবেদনশীলতা ও নারীবান্ধব কর্মপরিবেশ গঠনের জন্য প্রতিবন্ধকতা চিহ্নিত ও সমাধান বের করা। BPWN-এর কৌশলগত পরিকল্পনার তিন বছরের কার্যাবলি পর্যালোচনার পর প্রাপ্ত প্রশিক্ষণ পরবর্তী ২০২৪-২০২৬ সাল পর্যন্ত পরিকল্পনা প্রণয়নে কাজে লাগানো।

বাংলাদেশ পুলিশকে মানুষের প্রথম ভরসার স্থল, জনবান্ধব ও জেন্ডার সংবেদনশীল পুলিশিং এর রোলমডেল হিসেবে আস্থাভাজন ও গ্রহণযোগ্যতা তৈরিতে বর্তমান পুলিশ নেতৃত্বের আন্তরিক সহযোগিতার মাধ্যমে এ কৌশলগত পরিকল্পনার বাস্তবায়ন ও মূল্যায়নে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। বিশ্ব মানচিত্রে ২০৪১ এ উন্নত বাংলাদেশ হিসেবে স্থান অর্জনে সামাজিক নিরাপত্তা, শান্তি স্থিতিশীলতা বজায়ে অনন্য ভূমিকা রাখছে বাংলাদেশ পুলিশ। যার অন্যতম গর্বিত সহযাত্রী বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্ক।

লেখক : যুগ্ম-পুলিশ কমিশনার (ট্রান্সপোর্ট)

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, ঢাকা

ও সহ-সভাপতি

বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্ক।

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *