ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

ডিটেকটিভ রিপোর্ট

স্বরাষ্টমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান রোহিঙ্গা পরিস্থিতি দেখতে ১৯ জানুয়ারি কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা শিবিরে যান। সঙ্গে ছিলেন  স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো.শহিদুজ্জামান, বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) ও ডিআইজি চট্টগ্রাম রেঞ্জ মো. আনোয়ার হোসেন বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) সহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সফরকালে বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকগণের (রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী) প্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময় করেন। শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কার্যালয়ের কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তারাও বৈঠকে যোগ দেন। বৈঠকে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের বিষয়ে আলোচনা হয়। বর্তমানে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠানোর তৃতীয় দফা প্রস্তুতি চলছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হেলিকপ্টারযোগে নোয়াখালীর ভাসানচর আশ্রয়শিবিরে নামেন। সেখানে তিনি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সার্বিক অবস্থান পরিদর্শন করেন এবং ভাসনচর থানা উদ্বোধন করেন। সফরকালীন তিনি শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয়ের কর্মকর্তাগণের সাথেও মতবিনিময় সভা করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক ঔদার্যে মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশে আমরা কোন চাঁদাবাজ, মাদককারবারি রাখব না। কোনো সন্ত্রাসী বাহিনীকে আশ্রয় দেয়া হবে না। সন্ত্রাসী, মাদককারবারি ও অভ্যন্তরীণ গ্রুপ সৃষ্টিকারীদের সম্পর্কে তথ্য প্রদানের আহ্বান জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) রোহিঙ্গাদের উদ্দেশ্যে বলেন- ক্যাম্পে অবস্থানকালে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখবেন। নিজ দেশে না ফেরা পর্যন্ত বাংলাদেশে অবস্থানকালে এ দেশের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবেন।

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *