ই-পেপার

SITE UNDER CONSTRUCTION
বাংলাদেশ পুলিশের মুখপত্র
অব্যাহত প্রকাশনার ৬৩ বছর

মোঃ জহিরুল হক

১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক শোকার্ত দিন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে ঘটেছিল ইতিহাসের জঘন্যতম নৃশংস হত্যাকান্ড। ওই কাল রাতে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

১৫ আগস্ট ৩২ নম্বরে ঘটে যাওয়া বিশ্বের ইতিহাসে নির্মম হত্যাকান্ডের আদ্যোপান্ত ও তথ্য বিশ্লেষণ করে দীর্ঘদিনের গবেষণা শেষে ‘অভিশপ্ত আগস্ট’ নাটকটি রচনার প্রেক্ষাপট তৈরি করেন ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি হাবিবুর রহমান। তাঁরই অনুপ্রেরণায় নাটকটির নাট্য রূপ ও নির্দেশনা দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ পরিদর্শক জাহিদুর রহমান। ১৫ আগস্টের সেই হত্যাকান্ডের করুণ আলেখ্য এবং পূর্বাপর ঘটনা তুলে ধরা হয়েছে ‘অভিশপ্ত আগস্ট’ নাটকে। ইতিহাসের খলনায়ক খন্দকার মোশতাকের সঙ্গে ঘাতক চক্রের সদস্য মেজর ফারুক, মেজর রশীদ, ডালিমসহ পর্দার আড়ালে থাকা কুশীলবদের ভূমিকা, ষড়যন্ত্রের বীজ বপন, বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা, ক্ষমতা দখলের নীলনকশা তৈরি ও সেই সঙ্গে সা¤্রাজ্যবাদী শক্তির গোপন পৃষ্ঠপোষকতা অতি নিপুণভাবে উঠে এসেছে নাটকের আখ্যানে। নাটকটিতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে হত্যাকান্ডের সময় বঙ্গবন্ধুসহ তাঁর পরিবারের সকল সদস্যসহ শিশু রাসেল হত্যাকান্ডের করুণ আর্তনাদে সৃষ্ট বিভিষীকাময় আবহ। এ নির্মম দৃশ্য প্রত্যক্ষ করে দর্শকরা অশ্রুসিক্ত হয়ে পড়ে।

বাংলাদেশ পুলিশ নাট্য দলের পরিবেশনায় ‘অভিশপ্ত আগস্ট’ নাটকটির উদ্বোধনী মঞ্চায়ন হয়েছে ৩১ জুলাই রাতে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটোরিয়াম, রাজারবাগে। এতে ডিএমপি কমিশনার মোহাঃ শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে নাটকটির উদ্বোধনী মঞ্চায়ন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার)। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ যর্থাথই বলেছেন, ‘সেদিন রাতে বঙ্গবন্ধু ভবনে কি ঘটেছিল তার আদ্যোপান্ত দেশের ১৬ কোটি মানুষ জানে। ঐতিহাসিক এমন একটি ঘটনাকে নাটকে তুলে আনা সহজ কাজ নয়। তবু, পুরো ঘটনাটি অত্যন্ত সাবলীলভাবে উপস্থাপন করেছেন এর অভিনেতা কলাকুশলীগণ। এ নাটকে যারা অভিনয় করেছেন তারা কেউ প্রফেশনাল অভিনেতা নন। বাঙালি জাতিসত্তার বিষয়টিকে বিবেচনায় রেখে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে বাঙালির জাতিসত্তার যে আবেগের সম্পর্ক রয়েছে, আত্মার সম্পর্ক রয়েছে, মর্মের সম্পর্ক রয়েছে সেখানে প্রত্যেক অভিনেতা-অভিনেত্রী নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন। তারা আমাদেরকে এক ঘণ্টা দশ মিনিট মন্ত্রমুগ্ধের মতো আবিষ্ট করে রেখেছেন। আইজিপি মহোদয় বলেন, আমি মনে করি, এটা দীর্ঘদিন মঞ্চায়িত হবে। ১৫ আগস্টের ঘটনাবলীর উপর নির্মিত নাটকের সাথে সম্পৃক্ত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে আইজিপি বলেন, এই নাটকটি যিনি লিখেছেন, যাঁরা অভিনয় করেছেন সবকিছু মিলিয়ে “অভিশপ্ত আগস্ট” নাটকটি চমৎকার হয়েছে। এ নাটকটি একটি ঐতিহাসিক দলিল। এটি একটি ফ্যাক্ট বেইজড ডকুমেন্ট। প্রত্যেকেই খুব ভাল মর্মস্পর্শী অভিনয় করেছে। আমার মনে হয়েছে তারা প্রত্যেকেই নিজেদেরকে অতিক্রম করার চেষ্টা করেছে। আমাদের পুলিশ নাট্য শিল্পীরা নাট্য সাহিত্যে একটি নতুন দিগন্তের সূচনা করবে।

আইজিপি তাঁর বক্তব্যের শুরুতে বাংলাদেশের তথা সারা বিশ্বের বাঙালির মহানায়ক, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পবিত্র আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন ও তাঁর আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। তিনি অভিশপ্ত ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধু ভবনে বঙ্গবন্ধু পরিবারের যাঁরা শাহাদাতবরণ করেছিলেন তাঁদেরও আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান তার স্বাগত বক্তব্যে নাটকটির রচনার পটভূমি উল্লেখ করে বলেন, দায়বদ্ধতা থেকেই বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আমরা এ নাটকটি মঞ্চায়ন করেছি। ১৫ আগস্ট ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনে সংঘটিত মর্মস্পর্শী ঘটনাকে উপজীব্য করে ‘অভিশপ্ত আগস্ট’ একটি সত্যাশ্রয়ী নাটক। তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে রাজারবাগ থেকে প্রথম প্রতিরোধ করেছে পুলিশ, প্রথম রক্ত দিয়েছে পুলিশ, প্রথম শহীদ হয়েছে পুলিশ। ১৫ আগস্ট কালরাতে যে ভয়াবহ ঘটনা ঘটে তা এখন ইতিহাসের বিষয়বস্তু। এই বিষয়টি তুলে ধরার জন্য জাতির পিতার জীবন ও কর্ম নিয়ে আমাদের পুলিশ সাহিত্য সাংস্কৃতিক পরিষদ দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে চলেছে। ১৫ আগস্টের নৃশংস ঘটনায় হত্যা মামলার নথিপত্র ও বিভিন্ন তথ্য বিশ্লেষণ করে এ নাটকটি রচনা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ‘অভিশপ্ত আগস্ট’ নাটকটি নাট্যরূপ ও নির্দেশনা দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ পরিদর্শক মোঃ জাহিদুর রহমান। নাটকটি প্রযোজনা করেছে বাংলাদেশ পুলিশ নাট্যদল। নাটকটিতে ৩২টি চরিত্র রয়েছে। এক ঘন্টা দশ মিনিট ব্যাপ্তির ‘অভিশপ্ত আগস্ট’ নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে বাংলাদেশ পুলিশ নাট্য দলের কলাকুশলীগণ অনবদ্য অভিনয় করছেন। ইতোমধ্যে, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, রাজবাড়ী, কাপাসিয়া, গোপালগঞ্জসহ রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে নাটকটি মঞ্চস্থ হয়েছে। আগস্ট মাসে নাটকটির ৩০ তম মঞ্চায়নের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

লেখক : সাংবাদিক

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published. Required fields are marked *