ই-পেপার

কেয়া নামের ছোট্ট মেয়েটি

মোঃ আবু জাফর নববর্ষ আসলেই মনটা খুব খারাপ হয়ে যায় শফিক সাহেবের। এত আনন্দ স্ফুর্তি, চারিদিকে সাজসজ্জা, ছোট ছোট ছেলে মেয়েসহ সর্বস্তরের মানুষের নানা রংয়ের পোশাক পরিচ্ছদের ঝলকানি, আনন্দ উচ্ছ্বাস সব কিছুই শফিক সাহেবের জন্য কষ্ট বয়ে আনে। নিদারুণ এক মানসিক যন্ত্রণায় মনটা ভারাক্রান্ত হয়ে থাকে। তারপরেও তিনি প্রতি বছর

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

তদন্ত ও মায়ের দোয়া

মোঃ আবু জাফর কাগজটা হাতে নিয়ে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে দেখলো এসআই রাহাত। মাত্র ৫ দিন আগে সে এই থানায় যোগদান করেছে। জেলায় যোগদান করেছে ১১ দিন আগে। সবেমাত্র প্রশিক্ষণ ও শিক্ষানবিশ শেষ করেছে। এটাই তার প্রথম পোস্টিং। নতুন চাকরি বিধায় পুলিশ সুপার স্যার কাজ শেখার সুবিধা ও সবদিক

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)

আধাঁরের হাতছানি

মোঃ আবু জাফর লোকটির নাম রাজীব। ৫৩ বা ৫৪ বছর বয়স। বয়সটা তেমন বেশি না হলেও শারিরীক ও মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ার কারণে যে কেউ তাকে দেখে ৭০ বছরের বৃদ্ধ বলে ভেবে নিলে মোটেও ভুল হবে না। একটি কাঠের চেয়ার পেতে বাড়ির সামনে একটি আম গাছের ছায়ায় সে বসে আছে। পায়ের

ভালো লাগলে শেয়ার করে দিন :)